শুষ্ক চুলের পিছনে কারণ – Cause of dry hair

Cause of dry hair এর প্রথমেই যেটা আমাদের জানতে হবে বিষয়টা কি, শুষ্ক চুলের পিছনে কারণ প্রধানত দুটি, তৈলগ্রন্থির নিষ্ক্রিয়তা অথবা সেগুলির সংখ্যাল্পতা। শুকনাে চলের প্রধান লক্ষণ। বিবর্ণ ও অনুজ্জ্বল চুলএবং ভঙ্গুর ও ফাটা ডগা। শুকনাে চুলের স্থিতিস্থাপকতা নেই বললেই চলে। তার ফলে সামান্য টান পড়লেই এই চুল ছিড়ে যায়।

চুল শুকনাে ও রুক্ষ হওয়ার জন্য প্রধানত তিনটি অবস্থা দায়ী

স্বাভাবিক টানাপােড়েন

চুল শুকনাে ও নির্জীব হয়ে যাওয়ার প্রধান কারণ চুলের মধ্যম স্তর কর্টেক্সের জলীয় উপাদানের স্বল্পতা। আরেকটি কারণ হল, চুলের মধ্যে (সেবাম) তেল সরবরাহের অভাব। প্রতিটি চুলের নিজস্ব আদ্রতার ভাণ্ডার থাকে। কিন্তু (সেবাম) তেলের স্বাভাবিক সরবরাহ না থাকলে চুলের জলীয় উপাদান খুব তাড়াতাড়ি বাষ্পীভূত হয়ে যায় এবং স্বভাবতই চুলে আর্দ্রতার অভাব ঘটে এবং চুল শুষ্ক ও নির্জীব হয়ে পড়ে। বংশগত কারণে বা বয়স বাড়ার জন্যও চুল শুষ্ক হয়ে যায়। এছাড়া হরমােন সংক্রান্ত গােলযােগ, অপুষ্টিকর খাওয়া দাওয়া এবং প্রচণ্ড মানসিক আঘাতের জন্যও চুলের স্বাস্থ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

চুলের পুষ্টি বা যত্ন নেবেন কীভাবে – All about hair care

A small introduction about our Hair4All

রাসায়নিকজনিত ক্ষতি

অত্যধিক ব্লিচের ব্যবহার, চুল রঙ, বারংবার পার্মিং ইত্যাদি চুলের ক্ষতি করে। (এইসব কাজেই নানারকম রাসায়নিক পদার্থ চুলে প্রয়ােগ করা হয়। এই সমস্ত রাসায়নিক পদার্থ কেশকূপ দিয়ে ভিতরে গিয়ে চুলের গোড়া দুর্বল করে দেয়। রাসায়নিক পদার্থের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত চুল হাত দিয়ে স্পর্শ করলে শুদ্ধ ও নির্জীব বােধ হয়। এই চুলের স্থিতিস্থাপকতা এত কম যে আঁচড়ানাের সময় সহজেই ছিড়ে চিরুনি বা ব্রাশের সঙ্গে উঠে আসে। আসলে চুলের রক্ষাকারী প্রাকৃতিক উপাদানের স্তরটি ক্ষতিকর। রাসায়নিক প্রভাবে ফেটে যায়। এর ফলে চুলে জট পড়ে এবং চুলের রঙ তামাটে হয়ে যায়। এই ধরনের শুষ্ক ও ভঙ্গুর চুলকে পুষ্টি জোগানাের জন্য নিয়মিতভাবে ডিম, টকদই, হেনা অথবা মালাইদার কন্ডিশনার ব্যবহার করা বিশেষ প্রয়ােজন। অবশ্য কন্ডিশনার ব্যবহারেও সতর্কতা দরকার, কারণ অতিরিক্ত কন্ডিশনার ব্যবহারে চুল তেলতেলে হয়ে নেতিয়ে পড়ে। যদি দেখা যায় যে শ্যাম্পু করার পরে চুল জট পাকিয়ে যাচ্ছে, তাহলে প্রথমেই দেখতে হবে যে চুলের প্রকৃতি অনুযায়ী সঠিক শ্যাম্পু প্রয়ােগ করা হয়েছে কি না। জট পাকানাে রুক্ষ চুল প্রতিবার শ্যাম্পু করার পর ভাল করে জল দিয়ে ধুয়ে কন্ডিশনার প্রয়ােগ করতে হবে। তাতে জট ছেড়ে গিয়ে চুল সহজে আঁচড়ানাে যায়, এবং চুল মােলায়েম ও পেলব হয়ে ফুলে ওঠে এবং চাকচিক্য বাড়ে।

যন্ত্রসামগ্রীজনিত ক্ষতি

আমরা অনেকেই ভুল শ্যাম্পু বা তেল ব্যবহার করে চুলের ক্ষতি করি। যেমন, শুষ্ক চুলের স্বাস্থ্য ও জেল্লা ফিরিয়ে আনতে সর্বদাই এগ শ্যাম্পু ব্যবহার করা উচিত। একইভাবে যান্ত্রিক উপকরণের ভুল ব্যবহারেও চুলের চরম ক্ষতি করে, চুল নির্জীব হয়ে পড়ে ও তার ডগা ফেটে যায়। সস্তা বা ত্রুটিপূর্ণ চিরুনি, ব্রাশ ও রােলার চুলের ক্ষতি করে। হেয়ার ড্রায়ার বা ভিজে চুল শুকোনাের যন্ত্র ব্যবহার করার সময় ড্রায়ারটি চুলের থেকে অন্তত ৬-৮ ইঞ্চি দূরে রাখতে হবে। ড্রায়ারের উত্তাপ যেন কখনই খুব বেশি না হয়। ড্রায়ার একই জায়গায় স্থির না রেখে সমানে নাড়িয়ে নাড়িয়ে বিভিন্ন অংশের ওপর অল্পক্ষণ করে রাখা উচিত৷ কারণ একই জায়গায় টানা বেশিক্ষণ তাপ লাগলে চুলের ক্ষতি হয়। সেন্ট্রাল হিটিং ও এয়ার কন্ডিশনার, ঘরকে কৃত্রিম উপায়ে যথাক্রমে উষ্ণ ও শীতল রাখার যন্ত্র। সর্বদা এইরকম কৃত্রিম আবহাওয়ার মধ্যে থাকলেও চুল শুষ্ক হয়ে যায়। এছাড়া প্রখর সূর্যতাপ, সমুদ্রের নােনা জল এবং ক্লোরিন দ্বারা পরিশােধিত জলও চুলকে শুষ্ক করে তােলে।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
1 Comment
Oldest
Newest Most Voted
Inline Feedbacks
View all comments

[…] শুষ্ক চুলের পিছনে কারণ – Cause of dry hair […]